নার্স নিয়োগ

আগামী আগস্টেই ৯ হাজার ৬১৬ জন সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে নিয়োগ পাচ্ছেন। এই পদগুলো দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করায় বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীনে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আজ সোমবার লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের সনদসহ যাবতীয় তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ হবে। প্রতিদিন শত শত প্রার্থী পিএসসি কার্যালয়ে এই কাজের জন্য ভিড় করছেন।

এ বিষয়ে পিএসসির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক ইত্তেফাককে বলেন, প্রতিদিন ১০টি বোর্ডে ৪শ’ প্রার্থীর মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে। ঈদের পরপরই মৌখিক পরীক্ষা শুরু হবে। আগস্টের মধ্যেই নিয়োগের জন্য চূড়ান্ত সুপারিশ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রতিটি নিয়োগ পরীক্ষার ক্ষেত্রে প্রাক-পরীক্ষা তৈরি করা হয়েছে। সেই অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন সেবা পরিদফতরের আওতায় বহুল আলোচিত ‘সিনিয়র স্টাফ নার্স’ নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা গত ৩ জুন অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় শ্রেণির এ পদের জন্য প্রার্থী সংখ্যা ছিল ১৮ হাজার ৬৩ জন। ৭ জুন ফলাফল প্রকাশ করে পিএসসি। এতে ১১ হাজার ৯৫ জন উত্তীর্ণ হন।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (নন-ক্যাডার) শেখ শাখাওয়াত্ হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উত্তীর্ণদের বিপিএসসি ফরম-৩ ডাউনলোড ও যথাযথভাবে পূরণ করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ ৯ থেকে ২০ জুনের মধ্যে আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ে হাতে হাতে জমা দিতে হবে। এছাড়া ডাকযোগে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ে পরিচালক, ইউনিট-৭ বরাবর জমা দেওয়া যাবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ তিন হাজার ৬১৬টি সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। পরবর্তীতে আরো ৬ হাজার নিয়োগের চাহিদা পায় পিএসসি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে সরকারি হাসপাতালে নার্সিং সেবার ঘাটতি কমাতে ১০ হাজার নার্সের পদ সৃষ্টির ঘোষণা দেন।