আবদুল করিম ,নূরজাহান বেগম ,বাংলা সাহিত্যে,মনীষী

ব্যতিক্রমী সাহিত্য চর্চা প্রতিষ্ঠান শঙ্খ নন্দিনীর উদ্যোগে বাংলা সাহিত্যের অন্যতম দিকপাল মুন্সি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ ও “বেগম” সম্পাদক মহিয়সী নারী নূরজাহান বেগম স্মরণে সাহিত্য আলোচনা সভা বিকেলে আন্দরকিল্লাস্থ ব্লু-ওশান অডিটরিয়ামে শঙ্খ নন্দিনীর সভাপতি বিশিষ্ট কবি ও কথাসাহিত্যিক দীপালী ভট্টাচার্য এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠক ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। মুখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ইতিহাস গবেষক ও কবি এ বি এম ফয়েজ উল­াহ। উদ্বোধন করেন জাতীয় কবিতা মঞ্চের সভাপতি কবি মাহমুদুল হাসান নিজামী। শঙ্খ নন্দিনীর সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মো. ফখরুদ-দীনের সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন আলোকিত নন্দিনী কবি মেহেরুন নেসা রশিদ, প্রধান শিক্ষক বাবুল কান্তি দাশ, প্রবীণ শিক্ষাবিদ শিশির বড়–য়া, কবি ও প্রাবন্ধিক আরিফ চৌধুরী, অধ্যক্ষ শেখ শফিউল কাদের চৌধুরী, কবি শাহাজাদা হোসেন শাওন, কবি মোহাম্মদ রিয়াজ, সাংবাদিক সোহেল তাজ, কবি অনামিকা বৃষ্টি, কবি কে এস এম নিশু, পুষ্পবার্তা সম্পাদক এনামুল হাসান, প্রকৌশলী কবি সঞ্চয় কুমার দাশ, প্রবীণ রাজনীতিক অমর কান্তি দত্ত, পটিয়া নাট্যগোষ্ঠীর সভাপতি কাঞ্চন চক্রবর্তী, কবি মনোয়ারা বেগম মো. নুরুল ইসলাম, শহিদুল আলম, মোহাম্মদ মনজুর আলম, মহিউদ্দিন চৌধুরী ইছা, সজীব দত্ত, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, হ্যাপী দাশ প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেছেন, বাংলা সাহিত্যকে বিশ্ব দরবারে মধ্যযুগের ইতিহাস ও ঐতিহ্যময় পুঁথিপত্রগুলো উদ্ধার করে এ জাতির ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করেছেন মুন্সি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ। তিনি মধ্যযুগের ইতিহাসকে তুলে ধরার মাধ্যমে বাঙালি মুসলমানের ইতিহাসকে গৌরবান্বিত করেছেন। সভায় বক্তারা আরো বলেন, মহিয়সী নারী নূরজাহান বেগম এবং তাঁর ‘বেগম’ পত্রিকার মাধ্যমে বাংলার নারী জাগরণে গুরুত্ব অবদান রেখেছন। ‘সওগাত’ পত্রিকার সম্পাদক নাসিরউদ্দিনের যোগ্য উত্তরাধিকারী হিসেবে ‘বেগম’ পত্রিকা ও নূরজাহান বেগম সফল ইতিহাসের সাক্ষী। সাংবাদিক নাসিরউদ্দিন, নূরজাহান বেগম ও শিশু সাহিত্যিক রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই সৃজনশীল সাহিত্যকে মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দিয়ে মানব কল্যাণে ও মানবতার জয়ের জন্য কাজ করে গেছেন। বক্তারা আরো বলেন, আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ ও নূরজাহান বেগম বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে স্মরণীয় মনীষী। আমাদের সকলের উচিত এই সমস্ত গুণী মানুষকে মূল্যায়ন করে দেশ ও জাতির স্বার্থে বর্তমান প্রজন্মের কাছে তাঁদের জীবন কর্মগুলো তুলে ধরা। সভায় আলোকিত নন্দিনী কবি দীপালী ভট্টাচার্য ও কবি মেহেরুন নেসা রশিদকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।

বিঃ দ্রঃ গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা ,চাকরি এবং বিজনেস  নিউজ ,টিপস ও তথ্য নিয়মিত আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বাংলার জব  এ ।