ইন্টারভিউ
১. অনেকেই ব্যাপক আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলেন, ‘আমার কোনো দুর্বলতা নেই।’ আসলে এ কথা কোনো মানুষের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য নয়। এ কথায় আগ্রাসী মনোভাব প্রকাশ পায়। আর মিথ্যা তো বটেই।
২. ‘এখানে চাকরি যাওয়ার কারণ কী হতে পারে?’ অনেক প্রার্থী বোকার মতো এ প্রশ্ন করে বসেন। চাকরি মেলার আগেই যদি তা খোয়ানোর বিষয়ে আলাপ করেন, তবে ওটাই হতে পারে আপনার ভবিষ্যৎ।
৩. ‘আমার একমাত্র দুর্বলতা আমি কঠোর পরিশ্রম করি।’ এ কথাটাও হাস্যকর ঠেকে। যদি তেমনটা হয়েও থাকেন, তবে তা মুখে বলাটা আপনার সাধারণ জ্ঞানের অভাব প্রকাশ করে।
৪. যদি নিজেকে বিভিন্ন বিষয়ে অতি পারদর্শী বলে প্রকাশ করতে থাকেন, সে ক্ষেত্রে অধিকাংশই মিথ্যা বলে গণ্য করবেন প্রশ্নকর্তারা। সত্য হলেও মিথ্যাবাদী বিবেচিত হবেন। তাই বক্তব্যটা বদলে নিন।
৫. ‘ইন্টারনেট ব্যবহারে কি নজরদারি করা হয়?’ এ প্রশ্নের মাধ্যমে সরাসরি সন্দেহের তালিকায় চলে গেলেন। কাজে ইন্টারনেট ব্যবহার করলেও ইন্টারভিউকারীরা অন্য কিছু ভেবে নেবেন।
৬. ‘আমাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছিল, কিন্তু আমি নির্দোষ ছিলাম।’ আগের ঘটনায় অজুহাত তৈরি করবেন না। এতে ফেঁসে যাবেন।
৭. ‘আমি সব কিছু করতে পারি’ বলে দম্ভ প্রকাশ করতে যাবেন না। কারণ সত্যিকার অর্থে অনেক কাজ আছে, যা আপনার পক্ষে করা সম্ভব নয়। কাজেই আপনি মিথ্যা বলছেন।
–বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

বিঃ দ্রঃ গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা ,চাকরি এবং বিজনেস  নিউজ ,টিপস ও তথ্য নিয়মিত আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বাংলার জব  এ ।