এ প্লাস

আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীন চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায় যত পরীক্ষার্থী এ প্লাস বা জিপিএ-৫ পেয়েছেন, তাঁদের প্রায় ৮৫ শতাংশই বিজ্ঞান ও গার্হস্থ্য বিভাগের শিক্ষার্থী। এবার আটটি শিক্ষা বোর্ডে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪৮ হাজার ৯৫০ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ৪১ হাজার ৪৬৮ জনই বিজ্ঞান ও গার্হস্থ্য শাখার পরীক্ষার্থী।

আজ বৃহস্পতিবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের তথ্য তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এর আগে সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, পাসের হারেও বিজ্ঞান ও গার্হস্থ্য শাখার পরীক্ষার্থীরা এগিয়ে। এই শাখা থেকে ১ লাখ ৯০ হাজার ৮৫১ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছেন ১ লাখ ৫৮ হাজার ৪৭৬ শতাংশ। পাসের হার ৮৩ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।

ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে ৩ লাখ ৩ হাজার ৩৪২ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছেন ২ লাখ ২৫ হাজার ৭৯১ জন। গড় পাসের হার ৭৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৩১ জন।

মানবিক, ইসলাম শিক্ষা ও সংগীত শাখা থেকে ৫ লাখ ১২ হাজার ৮৬০ জন পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছেন ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৫৩৬ জন। পাসের হার ৬৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২ হাজার ৭৫১ জন। তিন শাখার মধ্যে এই শাখার ফল সবচেয়ে খারাপ।