শিক্ষা, খাঁটি বাংলা, চাকরি পরীক্ষা, দেশী শব্দ

খাঁটি বাংলা শব্দ বা দেশী শব্দ মনে রাখার শর্টকাট টেকনিক যেগুলো চাকরি পরীক্ষায় বারবার আসে-

যেসব শব্দ অতি প্রাচীনকাল হতেই এদেশে প্রচলিত হয়ে আসছে, আর্য সভ্যতার প্রভাবে লোপ পায় নি বা বিকৃত ঘটে নি, বর্তমান সময়ের প্রচলিত আছে, সেগুলোকে দেশী শব্দ বলে। যেসব শব্দ দ্রাবিড়, কোন অথবা এদেশের আদিম আধিবাসী অর্নাযদের ভাষা থেকে বাংলা ভাষায় স্থান লাভ করেছে সেগুলোকে খাঁটি বাংলা শব্দ বা দেশী শব্দ বলে।

খাঁটি বাংলা শব্দ বা দেশী শব্দ সম্পর্কে মুনীর চৌধুরী ও মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী বলেছেন, “বাংলাদেশের আদিম অধিবাসীদের যেমন: কোল, মুন্ডা প্রভৃতি ভাষা ও সংস্কৃতির কিছু কিছু উপাদান বাংলায় রক্ষিত আছে। এসব শব্দকে দেশী শব্দ নামে অবহিত করা হয়। অনেক শব্দের মূল নির্ধারণ করা যায় না, কিন্তু কোন ভাষা থেকে এসেছে তার হদিস মেলে। যেমন: কুড়ি (বিশ)-কোল ভাষা, পেট (উদর)-তামিল ভাষা, চুলা (উনুন)-মুন্ডারী ভাষা।”

ড. হুমায়ুন আজাদ বলেছেন, “বাংলা ভাষায় এমন কিছু শব্দ আছে, যেগুলোর মূলনির্ণয় করতে পারেন নি ভাষাতাত্ত্বিকেরা। তবে মনে করা হয়েছে যে, উদ্ভবের আগে যে-সব ভাষা ছিল আমাদের দেশে, সে-সব ভাষা থেকেই এসেছে ঐ শব্দগুলো। এমন শব্দকে বলা হয় ‘দেশী শব্দ’। এগুলোকে কেউ কেউ বিদেশী বা ভিন্ন ভাষার শব্দের মতই বিচার করেন। কিন্তু এগুলোকে গ্রহন করা উচিত বাংলা ভাষার নিজস্ব শব্দ হিসেবেই। ডাব, ডিঙ্গা, ঢোল, ডাঙ্গা, ঝোল, ঢেউ এমন শব্দ। এগুলোকে কী করে বিদেশী বলি।”

এদেশে আর্যরা আগমনের পূর্বে কোল, মুন্ডা, সাঁওতাল ইত্যাদি অর্নায জাতির বসবাস ছিল। আর্যদের প্রভাবে তারা প্রভাবান্বিত হলেও কিছু শব্দ তারা আর্যদের উপহার দিতে সক্ষম হয়েছে। বাংলা ভাষায় শতকরা দুইটি শব্দ এ উৎস থেকে গৃহীত হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন। দেশী শব্দের মধ্যে কিছু অর্নায শব্দ এবং কিছু অজ্ঞাত শব্দও রয়েছে যার মূল জানা এখনও পর্যন্ত সম্ভব হয়েনি। বাংলার পূর্ববর্তী প্রাকৃত ভাষায় এগুলো প্রবেশ করে এবং পরে পরিবর্তিত হয়ে বাংলায় এসেছে।

কতিপয় দেশী শব্দ:

ঢেঁকি, ঢোল, কাঁটা, খোঁপা, ডিঙি, কুলা, টোপর, খোকা, খুকি, বাখারি, কড়ি, ঝিঙা, কয়লা, কাকা, খবর, খাতা, কামড়, কলা, গয়লা, চঙ্গ, চাউল, ছাই, ঝাল, ঝোল, ঠাটা, ডাগর, ডাহা, ঢিল, পয়লা, চুলা,আড্ডা, ঝানু, ঝোঁপ, ডাঁসা, ডাব, ডাঙর, খোঁড়া, চোঙা, ছাল, ঢিল, ঝিঙা, মাঠ, মুড়ি, কালা, বউ, চাটাই, খোঁজ, চিংড়ি, কাতলা, ঝিনুক, মেকি, নেড়া, কুলা, ঝাটা, মই, বাদুর, বক, কুকুর, তেঁতুল, গাঁদা, শিকড়, খেয়া, লাঠি, ডাল, কলাকে, ঝাপসা, কচি, ছুটি, ঘুম, দর, গোড়া, ইতি, যাঁতা, চোঙা, খড়, পেট, কুড়ি, দোয়েল, খবর, খোঁচা, গলা, গোড়া, গঞ্জ, ধুতি, নেকা, বোবা, একটা ইত্যাদি।

দেশি শব্দ মনে রাখার কৌশল:

এক গঞ্জের কুড়ি ডাগড় টোপর মাথায় দিয়ে চোঙ্গা হাতে পেটের জ্বালায় চুলা কুলা ডাব ও ডিংগা নিয়ে টং এর মাচায় উঠল।