পে স্কেল

৩০ জুন পর্যন্ত টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বহাল রাখা হয়েছে চূড়ান্ত বেতন কাঠামোতে।

সূত্র মতে, ৩০ জুনের পর থেকে প্রশাসন, স্বাস্থ্য, তথ্য ও গণপূর্তসহ মোট আটটি ক্যাডারের কর্মকর্তারা এসব সুবিধা পেয়েছেন। অন্য ক্যাডার ও নন-ক্যাডার অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী তা পাননি, তবে আগামী ৩০ জুনের মধ্যে পাবেন। যেহেতু বেতন কাঠামোটি ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর, তাই ওই সময়ের পরে এ সুবিধা কাউকেই দেওয়া সম্ভব নয় বলে মত দিয়েছিল আইন মন্ত্রণালয়। তাই যারা এরই মধ্যে এ সুবিধায় বর্ধিত বেতন নিয়েছেন, নতুন বেতন স্কেলের গেজেট হওয়ার পর বর্ধিত ওই অর্থ ফেরত দিতে হবে বলে মত ছিল আইন মন্ত্রণালয়ের। তবে সুবিধাপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা তাতে রাজি ছিলেন না।

এ অবস্থায় অর্থমন্ত্রীও সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, যারা গেজেট জারির আগ পর্যন্ত টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড সুবিধা পাবেন, তাদের কাছ থেকে অর্থ ফেরত নেওয়া হবে না। তাতেও সমাধান হয়নি। কারণ গেজেট জারির পর অনেকেরই এ সুবিধা পাওয়ার কথা। একই বছরে কেউ সুবিধা পাবেন, আবার কেউ পাবেন না- এটি মনে নিচ্ছিলেন না ভবিষ্যতে পাবেন এমন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। পাওয়া না-পাওয়া সবাইকে খুশি করতে গিয়ে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত এ সুবিধা বহাল রাখার সিদ্ধান্তে ভেটিং করেছে আইন মন্ত্রণালয়। ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড স্থায়ীভাবে বাতিল হয়ে যাবে।